Bidding Adieu…

Today (December 29) is my last working day in TIFAC…after working for 27 years 8 months and 27 days in TIFAC, I would be superannuating on December 31, 2017!
It’s been a highly fulfilling and satisfying journey, which shaped me into a person, who I hope you all will care to remember with joy. 
I had the great fortune to work with the stalwarts in science & technology namely Dr Y S Rajan, Dr V S Ramamurthyand Dr APJ Abdul Kalam to name just a few… I was appointed as the Mission Director of Advanced Composites Mission by none other than Dr Kalam, when he was the Chairman-TIFAC. I would forever be grateful to Dr Rajan, who truly scripted the saga of my professional success. Not only for official work, on the personal front too I was blessed by and immensely benefitted from my close association with the kind-hearted and sharp-witted Dr Rajan, the first Executive Director of TIFAC. I’m indebted to him in many ways in life… At this hour of hanging my boots, I sincerely hope that I could live up to his expectations!
At this momentous juncture, I especially remember my junior colleagues, almost all of whom had joined starry-eyed and fresh after graduating from their respective institutions… I mentored them, guided them and initiated them into the wonders of new materials, nuances of chemical engineering and challenges of project management… hours, which rolled into days and years spent with them honed them into performing professionals, independent decision makers and worthy officers… on the personal front, they got married, owned houses and had kids, who would soon be finishing their schools…I would miss you all! 
On my personal front, I had the kids, who were born after I had joined TIFAC.  Our undisturbed stay in Delhi has truly enabled them find the moorings in their lives.They have grown into professionals in their own rights. Also, the major part of my stay in a gated green enclave of South Delhi, thanks to the Govt. accommodation, has squarely added to my family’s creature comforts. TIFAC has sent me to far-flung corners of this country and distant shores of the world on work thus enriching my worldview. 
The long innings in TIFAC studded with several projects, programmes, too many travels across the country and many abroad now appears like a haze… it went off rather too soon…
For my seniors, colleagues, associates and several others from TIFAC, DST and outside, I would like to be pardoned for if I had inadvertently hurt their feelings anytime.
While wishing you the best of times yet to come, I would like to say ‘bye’ and love to be in touch whenever you care to contact.
Best wishes & regards,
Soumitra Biswas
Scientist-G
Advertisements

Mumbai Musings…

 

The first week after retirement went off in a jiffy… attending the TIFAC farewell, pushed back for better attendance as compared to the last week of the year, applying for the lifelong health-card from the Govt. and slowly getting adjusted to the ‘no rush’ lifestyle! As the week had ended, I left foggy and bone chilling Delhi for more agreeable climes of Mumbai…

Mumbai is at its best in January… a mellowed sun lazily waking up at 8 o’clock and cool sea breeze wafting across with a great respite from sweaty and muggy stereotype weather of the maximum city! Some casual shopping at High Street Phoenix mall followed by a sumptuous lunch at Shizusan, a trendy Chinese eatery and topped with an evening visit to ‘Hunaar Haat’, a huge exhibition of handicraft-cum-fair of Awadhi food right on the grand Marine Drive ended a delightful Sunday!

For a lunch invite from a long-lost friend from my school and IIT (contacts re-established for the last few years through e-mail & WhatsApp though), I travelled to JVLR (Jogeshwari-Vikhroli Link Road for the uninitiated) and navigated through the directions to his swanky apartment on the tenth floor for a journey down the memory lane… meeting Tapan De (B.Tech/Aeronautical Engg/’79; M.Tech/Aero/’80 and now retired from Air India) and his beautiful family: wife– Deepanwita, son– Anirban & daughter– Pradeepta with great conversations accompanied with an incessant supply of food marked a memorable Monday…

After spending several years in the distant shores of Oman, Sharjah, Abu Dhabi, Libya…our good friend, Saswata Gupta (B.Tech/Agri Engg/’79/Nehru) had resurfaced in Delhi, where we had bumped into each other a few times. As he was recently relocated to Mumbai sans his family, we had promptly set up a luncheon date on Wednesday. Washing down platefuls of Bombay Ducks (Bombil in local parlance), mussels, Calamari and baby sharks with pints of Kingfisher at ‘Gajalee’, the famed seafood outlet at Lower Parel, we relived our Kgp days in right earnest…

And icing on the cake for this visit has been our discovery of the ‘Mecca’ of a market for fish, our quintessential ingredient of spiritual living! Ishwar, the chauffeur of Bulbul’s official car has been quite an encyclopaedia with nuggets of wisdom on mundane matters. On his suggestion that we should once try our luck with the fish et al at the municipal market near Grant Road station, yesterday evening we ambled into a bustling place of business, a close cousin of our own Haatibagan or Maniktala. A few steps into the market…Lo and behold! We were among the fishes and fisherwomen frantically trying to attract our attention. Forget the salt water varieties, with a veritable display of fishes appealing to typical Bengali palate namely, Rohu, Carp, Mullet (পার্শে in Bangla), Indian salmon (locally known as Rawas and গুরজাউলি in Bangla) apart from prawns and Pomfrets aplenty, the fish market cast a spell on us. We quickly struck a deal for two types of fishes from a fisherwoman, who insisted on sharing her mobile number with Bulbul stating that the need for any special variety of fish (Hilsa included) could be catered to with 24 hours’ advance notice! We returned home with our souls soaked in happiness of discovering a very large pot of gold!

 

 

 

 

 

Travel Travails – II

On a bright and sunny Saturday morning of late October, I was aboard the United Airlines flight from Tampa, Florida to Chicago. After a five-day stay in Tampa for attending and presenting a paper at an international conference, I was heading to Chicago to spend a few days with my cousin there before returning to New Delhi. As always I happily settled down in an aisle seat and discovered my wary looking co-passenger at the window with a vacant middle seat in between. The five feet nothing lady with a humongous girth could be termed a perfect ‘role poly’; she would be in her late twenties as evident from the youngish look on her face. She managed to flash a nervous smile as I had greeted her.

The captain’s voice crackled over the PA system, “Good morning dear passengers, welcome aboard United Airlines morning flight to ORD, Chicago! I’m sure you all had a very pleasant stay in Tampa. I am sorry to transport you from a fabulous Florida to the Windy City, where the current temperature is 46 degrees with a strong wind chill factor”! A collective sigh went up from all the passengers in anticipation of a cold and dreary destination.

I was rummaging through an in-flight magazine to keep myself busy for the three-hour long journey to Chicago. The cabin crews had finished serving the breakfast and followed it up with some freshly brewed coffee. And then suddenly all hell broke loose! Our aircraft had hit an air pocket and dropped no less than fifty feet in a minute. With frantic shouts of ‘Oh! My God’ from everywhere, wailing of babies and the cabin crews falling off in the aisle with steaming pots of coffee, it was quite a scene! A few seconds of free fall was enough for one to chicken out… I discovered my co-passenger badly panic-stricken with an ashen face appearing to collapse soon.

The captain immediately came back on the PA, “Extremely sorry, ladies and gentlemen! That was a bad air pocket indeed and our instruments failed to detect it. But please do not worry, your plane is in very safe hands and we hope to reach our destination very much on time. Sorry once again”, he signed off.

In order to soothe the frayed nerves of my co-passenger I gently struck up a conversation. Her name was Michelle and she worked for a local court in a town near Tampa. Her mother lived in Madison, Wisconsin further north of Chicago, where she would need to change her plane. She was on a vacation to spend a few days with her mom and other siblings. And surprise of surprises, this was the first flight in her life as she simply hated flying… Last time she went to see her mother, she drove all the way from Florida to Wisconsin!

I assured her that flying in modern time is much safer than the road journeys. I had flipped through the in-flight magazine and pointing to the world map, explained to her my extensive travels to distant shores with forays even to Latin American countries. After somewhat collecting herself she asked me, “What do you do?” As I proclaimed myself a Chemical Engineer, she immediately shot back, “Oh! You’re smart” – the typical American way of appreciation!

 

Travel Travails – I

Various official assignments took me across this great country… right from Moirang in Manipur bordering Myanmar on the east to Kaladungar in Kutch next to Pakistan on the western front, from Himachal in the north to Rameshwaram and Trivandrum in the south. I have literally crisscrossed the country setting out of Delhi almost once a week for onsite project reviews in remote corners, presenting papers in conferences & seminars…

 

One such assignment once took me to Nagpur, the city I had fallen in love with since my dad was posted there long ago. On a hot summer afternoon, I was returning from Sonegaon airport (now rechristened as Baba Saheb Ambedkar International Airport) at Nagpur by an old Boeing 737 of erstwhile Indian Airlines and I had settled down on my aisle seat like a veteran traveller. A tentative and fidgety person in his early thirties approached the row I was sitting in and showed me the boarding pass looking for his seat. I had got up and guided him to the window seat. On occupying his seat, he tried to fasten the seat belt and terribly messed it up… I immediately realized that he must be a first-time flier. Like a good Samaritan, I helped him fix the seat belt and he was profusely thankful for my help. He asked me quite innocently whether the food served in the flight would have to be paid for. That was quite unheard of those days sans the ‘no frill’ airlines and I had assured him that he could enjoy the food without any pinch on his pocket. As if to strike a conversation, he stated that he was flying for the first time in life for attending his employer’s some urgent business in Delhi. Minutes before the doors were closed, a young fellow had trudged in and occupied the middle seat. He introduced himself as an aircraft maintenance engineer with Indian Airlines; though he was posted in Delhi he had come to Nagpur to attend a maintenance problem in situ.

 

As the plane just lifted itself into the air, the man on the window seat exclaimed, ‘Arre, arre, pahiya gir gaya’! (Hey! the wheel has dropped off’!) Then he told us that he had seen the wheel rolling off the runway. The Indian Airlines engineer explained to him that was not possible, he must have hallucinated etc. After about five minutes the man on the window seat right behind our row had pressed the call button for the crew and spoke to the matronly air hostess in a hushed tone. And about 10 minutes later, we found the air hostess leading that person to the pilot’s cabin. On his return, we asked him what had happened. But he maintained a studied silence dismissing our query with a frivolous response.

 

One and half hours later we could see the vast expanse of Delhi below and after descending to a much lower height our plane started hovering around the city without showing any signs of touching down. After circling around the city about 10 times our plane had approached the runway. We spotted two fire tenders on two sides running at a breakneck speed to catch up with our plane. As the plane had finally touched down and canopies over the engines opened up for reverse thrusts to slow it down, there was a deafening sound of a tyre burst – the plane had badly tilted on one side and came to a stop!

 

The pilot announced over PA system thanking Mr Sharma from MOIL, Nagpur (the man on the window seat behind our row) for alerting him about a wheel falling off at Nagpur airport. Mr Sharma was suitably advised by the pilot not to divulge anything to prevent panic among the passengers. Our plane had to hover around Delhi’s sky for quite some time to burn off the extra fuel and ATC then permitted the pilot for a full emergency touchdown using the landing gear with three wheels instead of two pairs. The single wheel failed to cope with the load and finally gave way. All the passengers cheered and thanked the captain. Everyone was just too happy to come out unscathed from a potentially dangerous ordeal.

 

After about a month the Times of India, New Delhi reported that a crack team from DGCA had recovered the missing wheel of a Boeing 737 from the urchins playing with it in a village near the airport in Nagpur!

রকি পর্বতের স্বর্গরাজ্যে

ব্যান্ফ ন্যাশনাল পার্ক (Banff National Park) – তিনটি শব্দ আমায় করেছিল মন্ত্রমুগ্ধ  । অনেক বছর আগে, আমার এক ভাগ্নী কানাডার অ্যালবার্টা প্রদেশের ক্যালগারি (Calgary) থেকে সে দেশের পশ্চিমপ্রান্তে ভ্যাঙ্কুভার (Vancouver) অবধি তার সড়কপথে যাত্রার অভিজ্ঞতার কথা শুনিয়েছিল । কানাডার রকি পর্বতমালার মধ্য দিয়ে সে পথের অপরূপ বর্ণনা আমার মনে গেঁথে গিয়েছিল যেন । সুদূর কানাডার সে গন্তব্য ফিরে ফিরে আসত আমার অলীক কল্পনায় !

২০১৭ সালের মে মাসের শেষে আমরা গিয়েছি কন্যার কাছে ভ্যাঙ্কুভার শহরে – আমাদের আসার পরিকল্পনা শুনেই মেয়ে ব্যান্ফ ন্যাশনাল পার্কের এক তিন রাত্রি ও চার দিনের প্যাকেজ ট্যুরে আমাদের বুকিং করে রেখেছে । এতদিনের কল্পনা অবশেষে হতে চলেছে বাস্তবায়িত! এক শনিবার সকাল ছ’টায় বাড়ি থেকে বেরিয়ে পড়ি আমরা, বাড়ি থেকে একটু দূরে West 41st. Avenue ও Cambie Street-এর জংশন থেকে Grand Holidays Company’র গাড়ি আমাদের নিয়ে এল ভ্যাঙ্কুভার শহরের দক্ষিণ প্রান্তে Richmond নামের শহরতলি – সেখানে আমাদের জন্য অপেক্ষারত Mercedes Benz-এর এক সুপার ডিলাক্স বাস । সেই বাসে সওয়ার হয়ে আমরা ভ্যাঙ্কুভারের পূবদিকে এগোই, শহরপ্রান্ত ছাড়িয়ে আমাদের বাস Trans-Canada Highway (No. 1) ধরে । পশ্চিমে ব্রিটিশ কলাম্বিয়ার রাজধানী ভিক্টোরিয়া থেকে পূর্বে নিউ ফাউন্ডল্যান্ড প্রদেশে সেন্ট জন্স অবধি এই হাইওয়ের ব্যাপ্তি । দৈর্ঘ্যে ৭৮০০ কিমির বেশী প্রশান্ত মহাসাগর থেকে অ্যাটলান্টিক মহাসাগর যোগাযোগকারি হাইওয়েটি ছয়টি সময়সীমা (time zone) অতিক্রম করেছে, পার হয়েছে ক্যানাডিয়ান রকির দুর্গম অঞ্চল ।

ধীরে ধীরে আমাদের বাস সমতল ছেড়ে পাহাড়ি পথে এগিয়ে চলে – চারপাশে সবুজ মখমলে মোড়া পাহাড়সারি, পাহাড় থেকে আছড়ে পড়া উদ্দাম ঝর্ণা ও যাত্রাপথ ঘেঁষে কুলুকুলু স্রোতে বহতা পাহাড়ি নদী আমাদের সঙ্গী হয় । অদূরেই চোখে পড়ে রূপোলি বরফে ঢাকা পাহাড় চূড়ো, পার হয়ে আসি ছবির মত সব গ্রাম । বারোটা নাগাদ আমাদের বাস থামে Merritt নামে এক ছোট শহরে । এখানে কাঠচেরাই কারখানারই বাহুল্য – নানা মাপের কাঠের পাটাতন, বোর্ড ও প্লাইউডের veneer তৈরি হয় । অধিকাংশ অধিবাসী কৃষিজীবি – ছোট pick-up ট্রাকের ছড়াছড়ি কৃষিজাত পণ্য পরিবহনের জন্য । Merritt-এ আমাদের মধ্যাহ্নভোজের বিরতি প্রায় এক ঘন্টার, আমরা ‘Subway’- তে স্যান্ডউইচ, স্যালাড ও কফি দিয়ে লাঞ্চ সারি ।

আমাদের বাস চলে পাহাড় ও উপত্যকার পথ ধরে – প্রায় ঘন্টাখানেক চলার পর দেখতে পাই, Okanagan Lake । হিমবাহ থেকে বয়ে আসা জলে পুষ্ট এই লেক দৈর্ঘ্যে ১৩৫ কিমি, প্রস্থে ৪-৫ কিমি ও ২৩০ মি গভীর – দক্ষিণে এই লেক থেকে সৃষ্টি হয়েছে Okanagan নদী । আমরা Okanagan উপত্যকা ধরে এগিয়ে চলি, Okanagan Lake-এর পাড় ঘেঁষে । এ উপত্যকা আঙুরের চাষ ও কানাডার Icewine-এর জন্য বিখ্যাত । লেকের পাড়ে Okanagan শহর ছেড়ে কিছু দূরে আমাদের বাস Kelowna শহরে থামে । Kelowna লেকের ধারে এক ব্যস্ত রিসর্ট শহর, সপ্তাহান্তে সেখানে অনেক পর্যটকের আনাগোনা । Okanagan লেকের পাড় বাঁধানো প্রোমেনাড, তার পরেই লেকের মধ্যে কাঠের তৈরি বিরাট জেটি ও জাহাজঘাটা । সেখানে সার সার স্পীডবোট, পালতোলা নৌকা ও বড় বড় Yacht রয়েছে বাঁধা । আমরা জেটি ধরে হেঁটে পৌঁছই লেকের কাছে, অদূরে সবুজ পাহাড় আর ঝলমলে রোদ্দুরে লেকের শোভা প্রাণভরে করি উপভোগ, ছবি তুলে রাখি সে সৌন্দর্য্যের । স্কটল্যান্ডের Loch ness Monster-এর প্রচলিত কাহিনী অনুযায়ী Okanagan লেকেও আছে নাকি এক ভয়ঙ্কর জলজন্তু – ড্রাগনের মত দেখতে সেই জলজন্তুর এক কমিক রূপের শিল্পকলা রয়েছে প্রোমেনাডের কিছুটা জায়গা জুড়ে । বাচ্চাদের সে অদ্ভুত জন্তুর পিঠে চড়িয়ে, বাবা-মা’রা তাদের ছবি তুলতে ব্যস্ত ! প্রোমেনাড সংলগ্ন এক প্রশস্ত রাস্তা; সে রাস্তা ধরে পর পর অনেকগুলি রেস্তোরাঁ নানা দেশের খাবারের পশরা সাজিয়ে – তার মধ্যে খুঁজে পাই এক ভারতীয় খানার আয়োজনও ।

আরও এক ঘন্টা পর আমাদের বাস থামল Craigellachie, এ স্থানের মাহাত্ম্য বেশ চিত্তাকর্ষক – কানাডার পূর্ব থেকে পশ্চিম উপকূল অবধি ট্রেন চালায় Canadian Pacific Railway, সে সুদীর্ঘ রেলপথের লাইন পাতার কাজ চলেছিল দুই উপকূল থেকে । পাহাড়ি উপত্যকা, অনেক সুড়ঙ্গ, হিমবাহ ও নদীর ওপর সেতু পেরিয়ে এ রেলপথ ইঞ্জিনীয়ারিং ও প্রযুক্তির এক জয়গাথা ! ১৮৮৫ সালে এখানে মিলিত হয় দু’দিক থেকে আসা লাইন, রেলপথের স্লীপার-এ সর্বশেষ spike বা পিন গেঁথে লাইন জোড়ার কাজ হয় সম্পন্ন ! পূর্ব কানাডা হাত মেলায় পশ্চিমের সঙ্গে । শেষ spike-টি বিশেষ ভাবে চিহ্নিত সোনালি রঙে – রেলপথের পাশ দিয়ে বয়ে যায় এক ছোট্ট নদী, চারপাশের পরিবেশ বেশ মনোরম !

গরমকালে কানাডার ও অঞ্চলে সূর্য ডোবে রাত ন’টায় – সাড়ে ছ’টা নাগাদ আমাদের বাস ঢুকল Revelstoke নামে এক ছোট শহরে, এখানেই আমাদের রাত্রিবাস । Revelstoke শহরটি উপত্যকার সমতলে, এক পাগলপারা পাহাড়ি নদীর তীরে । শহরটির চারদিক ঘিরে সবুজ পাহাড়, কিছু পাহাড়ের চূড়োয় তখনও তুষারের মোড়ক – অতি সুন্দর এক রিসর্ট টাউন । আমাদের বাস থামে Revelstoke-এর ডাউনটাউনে – সেখানে বেশ কিছু দোকানপাট ও অনেকগুলি রেস্তোরাঁ, সবই ট্যুরিস্টদের চাহিদা মেটাতে । আবিষ্কার করি Roxy নামে শহরের একমাত্র সিনেমাহল, সন্ধ্যা সাতটায় একটাই শো – এক সাম্প্রতিক হলিউডি ছবি দেখানো হচ্ছে । আমরা এক চাইনীজ রেস্তোরাঁ থেকে আমাদের ডিনার গুছিয়ে নিই, হোটেলে গিয়ে একটু দেরিতে খাওয়া যাবে । আমাদের বাস নিয়ে আসে ট্র্যাভেল কোম্পানীর আগে থেকে বুক করে রাখা Hotel Sandman-এ । হোটেলটি বেশ ভালো, আমাদের ঘরটিও বেশ বড় মাপের ।

পরদিন ঝকঝকে সকালে সাড়ে ছ’টায় আমাদের বাস ছেড়ে দেয় – আধঘন্টা বাদে বাস থামে আর এক সুন্দর শহর Golden-এ, সেখানে প্রাতরাশ সেরে আমরা এগিয়ে চলি । কিছুক্ষণ পর আমরা প্রবেশ করি Glacier National Park – কানাডার রকি পর্বতমালার স্বর্গরাজ্যে এক তুষারদেশ । প্রায় ৪০০ টি হিমবাহ ও সক্রিয় তুষার ধ্বসের (active avalanche) রুট এই পার্কে – রাস্তা ও রেলপথ তুষারমুক্ত রাখতে এখানে চলে প্রকৃতির সঙ্গে অহরহ লড়াই বিশেষ করে শীতকালে ! ধীরে ধীরে প্রকৃতির রূপ যায় বদলে, রাস্তার ধারে ঘন জঙ্গল, প্রায়ান্ধকার সে জঙ্গলের অনেক জায়গায় তুষাররাশি । পথের ধারেই দেখি তুষারাবৃত হিমবাহের বিস্তৃতি, পাহাড় থেকে নেমে আসা অনেক ঝর্নার জল তখনও জমাট বরফ । রাস্তায় অনেকগুলি কংক্রিটের তৈরি লম্বা সুড়ঙ্গ, পাহাড়ের মাথা থেকে আছড়ে পড়া তুষার ধ্বস থেকে বাঁচতে ! আমাদের বাস রাস্তার ধারেই Bow Lake-এ এসে দাঁড়ায়, বরফে ঢাকা পাহাড়সারির পাদদেশে লেকের ব্যাপ্তি বড়ই মনোরম । অনেক জায়গায় লেকের জল তখনও বরফ, গ্রীষ্মের প্রারম্ভে সে বরফ গলতে শুরু করেছে সদ্য । আমরা সুদীর্ঘ ও সুপ্রাচীন হেমলক, ফার, স্প্রুস ও সেডারের জঙ্গলে ঢাকা Yoho National Park ছাড়িয়ে ব্রিটিশ কলাম্বিয়ার সীমানা অতিক্রম করে পার্শ্ববর্তী অ্যালবার্টা প্রদেশে প্রবেশ করি ।

বাস থামে Crossing নামে এক ছোট্ট জায়গায়, সেখানে এক রেস্তোরাঁয় আমাদের মধ্যাহ্নভোজের ব্যবস্থা । স্যুপ, স্যালাড, চার/পাঁচ রকমের নিরামিষ ও চার রকমের আমিষ পদ আর নানা dessert ও ফল নিয়ে চাইনীজ বুফে লাঞ্চের এক এলাহি আয়োজন । পরিপাটি করে খাওয়া সেরে আমরা এগোই Columbia Icefield-এর দিকে, আমাদের বাস পূব-পশ্চিমের হাইওয়ে ছেড়ে উত্তরের পথ ধরে । আমরা পৌঁছই Athabasca Glacier-এর উল্টোদিকে গ্লেসিয়ার ডিসকভারি সেন্টার – অনেকগুলি রেস্তোরাঁ, গিফ্ট শপ নিয়ে এক জমজমাট ট্যুরিজম কমপ্লেক্স । গ্লেসিয়ার ও Skywalk-এ যাওয়ার টিকিট নিতে হয় সেখান থেকে –সেসব জোগাড় করলো আমাদের ট্র্যাভেল কোম্পানী । ডিসকভারি সেন্টারের বাস আমাদের নিয়ে চলল গ্লেসিয়ারের দিকে – কিছু দূরে এক বড় সড় All Terrain Vehicle (ATV)-এ সওয়ার হ’লাম আমরা, গাড়িটির চাকার ব্যাস প্রায় পাঁচফুট, চাকায় গভীর খাঁজ কাটা, যে কোনও পথে সে গাড়ি চলতে সক্ষম । আর সেই বিরাট ATV-র চালকের আসনে উনিশ/কুড়ি বছরের এক তন্বী ! সে কলেজের গ্রীষ্মকালীন অবকাশে ATV চালানোর কাজ করে । অতি দুর্গম খাড়া চড়াই ও উতরাই পথ বেয়ে চলেছি আমরা, নুড়ি-পাথর বিছানো পথ, খরস্রোতা ছোট পাহাড়ি নদী ও সদ্য গলতে শুরু করা বরফে পিচ্ছিল – অন্য কোনও গাড়ি এখানে চালানো অসম্ভব । তরূণী সাবধানে ATV চালিয়ে আমাদের নামিয়ে দেয় একেবারে গ্লেসিয়ারের বুকে – চারিদিকে দুধসাদা হিমবাহ, তাপমান সেখানে শূন্যাঙ্কের ১০ ডিগ্রী সেন্টিগ্রেডের নিচে ।  জমাট বরফের প্রান্তরে বয়ে যায় সরু স্রোত, বোতলে ভরে রাখেন অনেকে অতিবিশুদ্ধ সে জল । ঐ ঠান্ডার মধ্যেই বরফ ছোঁড়াছুঁড়িতে মত্ত অনেক ট্যুরিস্ট, প্রায় সবাই ব্যস্ত নিজেদের ‘সেলফি’ তুলতে ।  সোয়েটার, মোটা জ্যাকেট, টুপিতে আপাদমস্তক ঢেকেও আমরা ঠান্ডায় জমে যাচ্ছি যেন – হঠাৎ শুরু হয় বৃষ্টি, ভারী ফোঁটা নিয়ে আসে বরফগুঁড়ো, ছুরির ফলার মত কেটে বসে মুখের ওপর ! শীঘ্রই রণে ভঙ্গ দিই আমরা, বাসের ভিতর নিরাপদ আশ্রয় খুঁজি ।

গ্লেসিয়ার থেকে নেমে আসি, বৃষ্টি যায় থেমে – আমরা চলি Skywalk-এর দিকে । Sunwapta উপত্যকায় এক নদীখাত থেকে প্রায় ১০০০ ফুট উঁচুতে শূন্যে ঝুলে আছে সেই Skywalk । ভারি স্টীলের বীম ধরে আছে এক বিশালাকায় ধনুকাকৃতি পায়ে চলার পথ, সে পথের মেঝে স্বচ্ছ কাঁচের তৈরি – যদি কোনও ব্যক্তির উচ্চতাভীতি থাকে, তবে সে পথে না হাঁটাই ভালো । চারিদিকে উপত্যকার উন্মুক্ত প্রান্তর, অদূরেই বরফে ঢাকা পাহাড়ের সারি, দৃশ্যপট অতীব মনোগ্রাহী ! আমার ক্যামেরা ধরে রাখে নিসর্গের টুকরো টুকরো ছবি ।

অবশেষে আমাদের বাস নিয়ে আসে ব্যান্ফ শহরে – প্রকৃতির লীলাভূমির কেন্দ্রে প্রার ৫০০০ ফিট উচ্চতায় ব্যান্ফ সম্পূর্ণ ট্যুরিস্ট প্রধান শহর । আমরা পৌঁছই এক বুটিক হোটেল, Banff Inn – সেখানেই আমাদের থাকার ব্যবস্থা । পরদিন সকালে সোনালি রোদ্দুরে ব্যান্ফ উদ্ভাসিত, আমি ক্যামেরাকে সঙ্গী করে হোটেল ছেড়ে বেরিয়ে পড়ি । ১৮৮০-এর দশকে ব্যান্ফ শহরের পত্তন, সে সময় রেলপথের কাজে আসা লোকজন বসবাস করতে শুরু করে সে শহরে । এখন অবশ্য ব্যান্ফ কানাডায় পর্যটনের মধ্যমণি – সারা বছর ধরেই অনেক ট্যুরিস্টের ভীড়, গ্রীষ্মকালে তো কথাই নেই ! সারা শহরে বিলাসবহুল হোটেল, বেড অ্যান্ড ব্রেকফাস্ট ও হোম-স্টে’র ছড়াছড়ি । বরফে ঢাকা পাহাড়সারি Mount Rundle, Sulphur Mountain, Mount Norquay ও Cascade Mountain ব্যান্ফকে ঘিরে রয়েছে । আমাদের হোটেলের ঠিক পিছনেই এক উঁচু পাহাড় । প্রকৃতির কোলে একেবারে ছবির মত সাজানো ব্যান্ফ; ডাউনটাউন দেখার মত – সুন্দর সব বিপণি, রেস্তোরাঁ ও কাফে । সেখানে প্রাতরাশ সেরে আমরা যাই Bow Falls দেখতে । জলপ্রপাতের উচ্চতা এমন কিছু নয়, কিন্তু জলরাশির প্রবাহ এতই বেশী যে আওয়াজে কান পাতা দায় ! সমতলে নেমে সেই প্রবল জলরাশি Bow River নামে বয়ে গেছে পাহাড়সারির মধ্যে ।

ব্যান্ফ ছাড়িয়ে আমরা আবার ১ নং হাইওয়ে ধরি । রাস্তার ধারে বরফঢাকা পাহাড়শ্রেণী, পথের বাঁকে বাঁকে দৃশ্যপট যায় পাল্টে, এক সারি পাহাড় শেষ হ’তেই অদূরে নতুন একদল তুষারচূড়োর সদর্প আবির্ভাব ।  পাহাড়, ঝর্ণা ও হিমবাহ সব মিলিয়ে এ যেন প্রকৃতির এক কল্পরাজ্য – নিসর্গ অকৃপণ হাতে তার শোভা বিলিয়েছে এ ধরার বুকে ! মোহিত হ’য়ে অবলোকন করি সুচিত্রিত ক্যানভাস, এ হেন সৌন্দর্য চাক্ষুষ করতে পেরে ধন্য হয়ে যাই । আমাদের বাস এসে থামে Lake Moraine-এ; Valley of Ten Peaks-উপত্যকায় ৬২০০ ফিট উচ্চতায় ১২০ একর ব্যাপ্তির লেক দশটি তুষারশৃঙ্গ পরিবেষ্টিত । উঁচু পাহাড়ের বেড়াটোপে সূর্যের আলো সরাসরি পৌঁছয় না লেকে, তাই তার জল তখনও বরফ – কিছু জায়াগায় বরফ গলতে শুরু করেছে মাত্র । তাপমান সেখানে বেশ কম, ওই ঠান্ডার মধ্যেই লেকের ধারে একটু হেঁটে আসি আমরা ।

আমাদের পরবর্তী গন্তব্য Lake Louise Skiing Centre, সে এক মস্ত পর্যটক কেন্দ্র, বেশ কয়েকটি রেস্তোরাঁ ও গিফ্ট শপ, শীতকালে পাহাড়ের মাথা থেকে স্কি করার সব যোগাড় ভাড়াও পাওয়া যায় সেখানে । আর পাহাড়ের মাথায় চড়ার জন্য আছে Gondola Ride, আমরা যাকে বলি রোপওয়ে । বুফে লাঞ্চ সেরে আমরা তিনজন এগোই গন্ডোলা চড়ে পাহাড়ের মাথায় উঠতে । চারিদিক ঢাকা ক্যাপসুল ছেড়ে খোলা এক চেয়ারে বসি আমরা – কিছুক্ষণের মধ্যেই সে চেয়ার উঠতে থাকে ওপরে । ৭০০০ ফিট উঁচুতে এসে নামি – সেখানে অনেকটা জায়গা জুড়ে পুরু বরফের আস্তরণ, ট্যুরিস্টরা সব বরফে দাঁড়িয়ে ছবি তুলতে মশগুল । সামনেই এক উপত্যকা আর সে উপত্যকা পেরিয়ে অসম্ভব সুন্দর রূপোলী চূড়োর এক সারি পাহাড়, দেখতে পাই সে পাহাড়সারির কোলে নীলকান্তমণির মত Lake Louise – এহেন স্বর্গোদ্যানে প্রকৃতির অশেষ রূপ করি আহরণ ।

এরপর আমরা পৌঁছই Lake Louise – ব্যান্ফ ন্যাশনাল পার্কের কোহিনূর এই লেক । এ লেকের টলটলে জল ঘন নীল, চারিদিকে ছোট ছোট সবুজ পাহাড়, দূরে হিমবাহ – সূর্যকরোজ্জল নীল আকাশের নিচে এ লেকের শোভা বর্ণনাতীত ! লেকের জলে অনেকেই বোটিং করতে ব্যস্ত, অনেক ট্যুরিস্ট লেকের পাড়ে চুপচাপ বসে – আমরাও নীরবে নিসর্গের সঙ্গে একাত্ম হয়ে যাই । এরপর আমাদের ফেরার পালা – ধীরপায়ে এগোই বাসের দিকে, ভালোলাগার আবেশে ভারাক্রান্ত মনকে দিই সান্ত্বনা ।

ব্যান্ফ ন্যাশনাল পার্ক ছেড়ে আমাদের বাস ফিরে চলে, আমরা আবার ব্রিটিশ কলাম্বিয়ায় প্রবেশ করি ।  ফিরতি পথে অন্য এক রাস্তায় আমাদের সঙ্গী হয় দৈর্ঘ্যে ৮৯ কিমি ও প্রস্থে ৫ কিমি Shuswap Lake – চিনুক স্যামন ও রেনবো ট্রাউট মাছের জন্য এ লেক বিখ্যাত । আমাদের বাস পৌঁছে দেয় Salmon Arm নামে এক শহরে, সেখানে এক নতুন ও খুবই ছিমছাম হোটেল, Comfort Inn-এ আমাদের রাত্রিবাস ।

পরদিন বিকালে আমরা এসে পৌঁছই ভ্যাঙ্কুভার ।

স্মৃতির মণিকোঠায় রয়ে যায় ব্যান্ফ ন্যাশনাল পার্ক, সে পথের অপার্থিব রূপ ফিরে আসে শুধু স্বপ্নে – স্বপ্নেই হেঁটে যাই বার বার Lake Louise-এর পাড় ধরে, রকি পর্বতমালার কোলে, তুষারাবৃত হিমবাহে, সেডারের ঘন জঙ্গলে…

[মাতৃমন্দির সংবাদ, শারদীয়া (অক্টোবর ২০১৭) সংখ্যায় প্রকাশিত]

 

 

 

Vivacious Victoria!

An invite to attend our daughter’s graduation ceremony in Vancouver this summer could not be better timed to escape the scorching heat of Delhi. In the wee hours of a Saturday, we flew from Delhi to Shanghai and after a brief stopover, a trans-Pacific haul brought us to Vancouver in about 19 hours! We had gained nearly twelve and half hours but our jet lag was minimal for the quickest possible connection.

Queen Victoria championed formation of the Canadian Confederation by integrating all its provinces under one rule. In fact, today’s federal Canada took its shape for her vision and concurrent actions. Thus, the former British queen is held in high esteem in Canada and the queen’s birthday is observed as Victoria Day on the last Monday before May 25 every year making it a long weekend. We had arrived on Saturday in the long weekend and we set out for Victoria, the beautiful capital of British Columbia in the early morning on Sunday.

To the west of Vancouver city, lies the great Vancouver Island and Swartz Bay port on the South-East end of the island is connected to the mainland Canada by ferry.  Victoria is located at the southernmost tip of the island. A short bus journey followed by a ride in Vancouver’s SkyTrain (unmanned metro) reached us Bridgeport Station. Thereafter, we had reached Tsawwassen Ferry Terminal an hour later by a two-coach vestibule bus. The hourly ferry service run by BC Ferries between Tsawwassen jetty to Swartz Bay serves as the arterial connection between mainland and Vancouver Island.

Hordes of holiday revellers thronged the ferry…all of them were headed to Victoria for the weekend escapade! The ferry interiors were plush with very comfortable seats next to large glass windows overlooking the open decks bustling with ‘selfie’ shooters! As the ship had sailed off, we queued up at the cafeteria and enjoyed a hearty breakfast with juices, toasted bread, scrambled eggs, sausages, eggs Benedict and coffee.

The one & half hour journey to Vancouver Island got over rather too soon – we had crossed many small islands, sailed through narrow channels between mountain ranges and watched with awe snow-capped Olympic Mountains in the neighbouring Washington state of US. We spotted many large ferries, sailboats etc. crossing by and a flock of cacophonous seagulls kept us company.

We left for Victoria, located about 32 km away from Swartz Bay, by a double-decker bus. Vancouver Island soon unfolded its bountiful nature – verdure of the hills around gleaming in an early summer sun, snow-spangled peaks at a distance, pristine lakes, lush green forests and meadows. Our bus meandered through small towns with beautiful neighbourhoods, picturesque houses on the seafront, schools, shops, cafes, restaurants and pubs and finally brought us to downtown Victoria.

Our stay at Albion Manor, built in 1892 AD and certified as a heritage B&B facility was pure bliss. It had a great display of artefacts, curios and masks made of metals, ceramics and stones from all over the world in the common areas. The property had a well-manicured garden around with a small fountain of guzzling waters and guests could relax sitting amidst nature.

We went back to the downtown for a date with the legislative assembly of British Columbia. The majestic edifice, built in 1898 and styled on French Baroque architecture, was smack at the city’s centre with a very wide open vista in front. We enjoyed many bands playing at its entrance for celebrating the Victoria Day. The open ground saw a large congregation of locals and tourists all enjoying the long weekend to the fullest. A young lady student from the University of Victoria interning at the assembly took us around innards of the complex while explaining the history of British Columbia, its electoral process and showed us the main assembly hall. The wondrous architecture of the building is heightened by many stained glass windows, wide stairways and high domes. We spotted the statue of Queen Victoria seated on the royal throne at the open space in front. Nearby stood a sombre war memorial dedicated to the Canadian soldiers killed in WW I&II, Korean and recent Afghanistan wars.

We joined the stream of tourists gravitating to the waterfront of Victoria with many yachts, sailboats and seaplanes all jostling for space and dotted with many restaurants promising the freshest catches of seafood. The promenade hemming the waterfront turned into a makeshift exhibition with local artists displaying their paintings and craftwork, magicians showing off their sleigh of hands, someone riding a high monocycle…We walked around the waterfront and had our fill with ubiquitous fish & chips, clam chowder soup and fried Calamari accompanied by draft beer watching the seaplanes landing and taking off for a sortie around the island and also for flying off to nearby islands.

Next day after a filling breakfast at Albion Manor with orange juice, blue berry pancake, fruits, sausages and coffee at Albion Manor, we set out for Craigdarroch Castle. Robert Dunsmuir, a Scottish fortune seeker migrated to Vancouver Island in mid-19th. Century to work in a coal mine near Nanaimo. He went on to own a coal mine and amassed a lot of wealth in the business. Craigdarroch Castle, built by Dunsmuir during 1887-1890 AD was a flagrant display of opulence so typical of North American rich of that era. Standing tall with its turrets, towers and 39 well-appointed rooms in a 25,000 sq ft area, the castle is a veritable exhibition of antiquated elegance. Parts of the castle are made of wood from oak, maple and cherry and the furniture were crafted of walnut, red cedar and rosewood. Living rooms, banquets and private dining options of the family members were replete with rare paintings and artefacts sourced from all over the world. We spent over two hours imbibing the history and aristocracy oozing from the place!

On our way back, we boarded the ferry, ‘Coastal Celebration’ leaving at 8 pm and headed to the restaurant for an indulgent dinner buffet. The restaurant located on one end of the ship provided a panoramic vista of the sea with varying colours as painted by the setting sun.

We returned home with aching feet but hearts filled with Victorian exotica…

 

দ্বীপের শহর ভিক্টোরিয়ায়…

মে মাসে দিল্লীর প্রচণ্ড দাবদাহ থেকে বাঁচতে আমরা কত্তা-গিন্নী এবার পাড়ি দিয়েছি সুদূর ক্যানাডায়  – মূল কারণটি অবশ্য অন্য, আমাদের কন্যার মাস্টার অফ সায়েন্স (MS) ডিগ্রী পাওয়ার সমাবর্তন অনুষ্ঠানে আমাদের নিমন্ত্রণ ! তবে রথ দেখার সঙ্গে কলা না বেচলে হয় ? সমাবর্তন তো আছেই, এছাড়া কাছাকাছি নানা জায়গায় ঘোরাঘুরির পরিকল্পনা শুরু হল জোর কদমে, কন্যার সঙ্গে ই-মেল ও হোয়াটসএ্যাপ-এর মাধ্যমে । বেশ কম সময়েই পরিকল্পনার সিংহভাগই সেরে ফেললো আমাদের কন্যা ।

অতঃপর এক শুক্রবার গভীর রাতে দিল্লীর ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে আমরা রওয়ানা দিলাম ক্যানাডার উদ্দ্যেশ্যে । আমাদের গন্তব্য ব্রিটিশ কলাম্বিয়া প্রদেশের দক্ষিণ-পশ্চিম প্রান্তে দেশের তৃতীয় বৃহত্তম বন্দর-শহর ভ্যাঙ্কুভার (Vancouver) । চায়না ইস্টার্ন এয়ারলাইন্সের বিমান প্রায় পাঁচ ঘন্টা পর আমাদের পৌঁছে দিল সাংহাই, সেখানে ঘন্টা দুয়েকের বিরতি – এরপর আর এক উড়ানে প্রশান্ত মহাসাগর অতিক্রম করে প্রায় ১২ ঘন্টার সফর শেষে আমরা পৌঁছলাম ভ্যাঙ্কুভার । সেখানে তখন শনিবারের এক ঝকঝকে সকাল, ১৯ ঘন্টায় আমরা পেরিয়ে এসেছি ১১,০০০ কিমি’র বেশী পথ, আমাদের ঘড়ি পিছিয়ে গেছে সাড়ে বারো ঘন্টা ! ‘জেট ল্যাগের’ সমস্যাটা সেরকম কিন্তু বাড়াবাড়ি মনে হল’না – দুপুরে একটু বিশ্রাম নিয়েই আমরা বেশ তরতাজা !

রাণী ভিক্টোরিয়া তাঁর শাসনকালে (১৮৩৭–১৯০১) যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোয় ক্যানাডিয়ান কনফেডারেশন তৈরি করে বিভিন্ন প্রদেশগুলির কনফেডারেশনে অন্তর্ভুক্তির ব্যাপারে খুবই সচেষ্ট ছিলেন, তাঁরই প্রচেষ্টায় সব প্রদেশগুলি একত্রিত হয়ে সৃষ্টি হয় আজকের বিশাল দেশ ক্যানাডা । ক্যানাডার ইতিহাসে এই অবদানের জন্য সে দেশে তাঁকে বিশেষ সম্ভ্রমের চোখে দেখা হয় । রাণী ভিক্টোরিয়ার জন্মদিন উপলক্ষ্যে শ্রদ্ধাজ্ঞাপনে মে মাসে ২৫ তারিখের আগে শেষ সোমবারটি পালিত হয় ‘ভিক্টোরিয়া ডে’ হিসাবে – সারা ক্যানাডা জুড়ে তিনদিনের ছুটির ‘লং উইকএন্ড’!  এবছর ২০ – ২২শে মে ছিল লং উইকএন্ড – আমরা পৌঁছেছি ২০শে মে, কন্যার আরো দু’দিন ছুটি বাকি । তাই ২১শে মে প্রায় ভোর ছটায় আমরা তিনজনে বেরিয়ে পড়ি ব্রিটিশ কলাম্বিয়া প্রদেশের রাজধানী, ‘ভিক্টোরিয়া’র দিকে ।

মানচিত্র একটু ঘাঁটলেই বোঝা যাবে, ক্যানাডার মূল ভূখন্ডে ভ্যাঙ্কুভার শহরের পশ্চিমে বিশালাকায় ‘ভ্যাঙ্কুভার দ্বীপ’ – সে দ্বীপের দক্ষিণ-পূর্ব প্রান্তে বন্দর, Swartz Bay, এরপর স্থলপথে  যেতে হবে ভিক্টোরিয়া । আমরা বাড়ি থেকে বেরিয়ে বাস ধরে কিছুক্ষণের মধ্যেই পৌঁছে যাই West 41st. Avenue ও Cambie Street-এর জংশনে SkyTrain ষ্টেশনে – পুরোপুরি স্বয়ংচালিত মেট্রো ট্রেনে নেই কোনও ড্রাইভারের অস্তিত্ব ! আমরা নেমে পড়ি Bridgeport ষ্টেশনে, সেখান থেকে দুই কোচ বিশিষ্ট বাসে প্রায় ঘন্টাখানেক পর আমরা পৌঁছই, Tsawwassen Bay । এটি সমুদ্রের ধারে এক সুন্দর জাহাজঘাটা, সেখান থেকে সময়সারণী অনুযায়ী ফেরী ছাড়ছে বিভিন্ন গন্তব্যের উদ্দ্যেশ্যে ।

‘Self service’ kiosk থেকে তিনটি টিকিট নিয়ে আমরা প্রবেশ করি ভিক্টোরিয়াগামী জাহাজে, জাহাজটির নির্মাণ শৈলী যথেষ্ট উন্নতমানের ও অভ্যন্তর বেশ সুন্দর – বাতানুকূল পরিবেশ, বড় বড় কাঁচের জানালার পাশে আরামদায়ক বসার জায়গা । জাহাজে শুধু ট্যুরিস্টদের ভীড়, সপ্তাহান্তের মজা আহরণে দলে দলে সবাই চলেছে ভিক্টোরিয়া । কিছুক্ষণের মধ্যেই জাহাজ ছেড়ে দিলে, আমরা প্রাতরাশের খোঁজে নীচের ডেকে ক্যাফেটারিয়াতে লাইনে দাঁড়াই । ফলের রস, টোস্টেড ব্রেড, স্ক্র্যাম্বল্ড এগস, এগ বেনেডিক্ট, সসেজ ও কফি দিয়ে বেশ পরিপাটি করেই সাঙ্গ হয় আমাদের প্রাতরাশ ! আমাদের জাহাজ পাহাড়সারির মধ্যে খাঁড়ি থেকে বেরিয়ে আদিগন্ত সমুদ্রে ভাসে, চারিপাশে অনেক পাহাড়, আমরা পেরিয়ে আসি ছোট দ্বীপ, পালতোলা ও মোটর চালিত নৌকা, অন্য দিকে থেকে আসা ফেরী; আমাদের সঙ্গী  হয় কর্কশ চিৎকাররত সী গালের দল খাবারের আশায় । দেখতে দেখতে কেটে যায় দেড় ঘন্টা সময়, আমাদের জাহাজ পৌঁছয় ভ্যাঙ্কুভার দ্বীপে Swartz Bay ফেরী টার্মিনাল ।

Swartz Bay থেকে ভিক্টোরিয়া প্রায় ৩২ কিমি দূরে – একটি ডাবল ডেকার বাসে ওপর তলায় সীট পাই আমরা । আমাদের বাস ধীরে এগিয়ে চলে – পথে পড়ে ফার, স্প্রুস, সেডার, ওক ও মেপল-এর জঙ্গল; সুউচ্চ, প্রাচীন চিরহরিৎ বৃক্ষের সমাবেশ, কুলকুল করে বয়ে চলা ছোট নদী, ছোট-বড় শান্ত জলাশয়, ঘন সবুজ ঘাসের কার্পেট বিছানো উঁচু নিচু ময়দান, সেখানে জাবর কাটতে ব্যস্ত অলস গাভীর দল । পেরিয়ে আসি ছবির মত সুন্দর ঘরবাড়ি নিয়ে ছোট ছোট শহর, স্কুল, দোকানপাট, পাব ও রেস্তোরাঁ । আমাদের বাস চলে সমুদ্রের তীর ঘেঁষে – রাস্তার ধারে সমুদ্রমুখি প্রাসাদোপম বাড়ি ।

আমাদের বাস প্রবেশ করে ভিক্টোরিয়া শহরে – সমুদ্রের তীরে সাজানো অতি সুন্দর শহর, ব্রিটিশ কলাম্বিয়ায় পর্যটনের অন্যতম কেন্দ্র বিশেষ । শহরে নানা মাপের ও দামের অসংখ্য হোটেল আর রাস্তায় দেশ-বিদেশ থেকে আগত পর্যটকের ঢল । ডাউনটাউন ছাড়িয়ে এসে আমাদের বাস থামে, বাস থেকে নেমেই চোখে পড়ে ব্রিটিশ কলাম্বিয়ার বিধানসভা – ১৮৯৮ সালে ফরাসী ‘বারোক’ শিল্পশৈলীতে নির্মিত সে এক সুবিশাল প্রাসাদপুরী । শহরের প্রাণকেন্দ্রে তার অবস্থিতি, সামনে সুবিস্তৃত সবুজ মাঠে রানী ভিক্টোরিয়ার বিরাট ধাতব প্রতিমূর্তি । তার অনতিদূরেই প্রথম ও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে এবং কোরিয়ান যুদ্ধে শহীদ ক্যানাডিয়ান সেনাদের স্মারক । বিধানসভার পাশ দিয়ে হেঁটে এগোই আমরা ভিক্টোরিয়ায় আস্তানার খোঁজে ।

ইন্টারনেটে খুঁজে পেতে আমাদের কন্যা, Albion Manor নামে Bed & Breakfast-এ একরাত্রির জন্য অগ্রিম বুকিং করে রেখেছিল । মিনিট দশেক হেঁটে Albion Manor-এ পৌঁছে আমরা অবাক –১৮৯২ সালে তৈরি সেটি নগরনিগম দ্বারা স্বীকৃত এক ঐতিহ্যশালী ভবন বিশেষ ! বাড়িটির চারপাশে বাগান অনেক রঙিন ফুলে সুশোভিত,  বাগানে এক কৃত্রিম ফোয়ারা ও প্রস্তরমূর্তি । বাড়িটিতে থাকার জায়গা সীমিত, সব মিলিয়ে নয়টি ঘর ও স্যুট – ঘরগুলি নম্বর নয়, বিভিন্ন নামে নামাঙ্কিত । আমাদের জন্য বুক করে রাখা ঘরটির নাম, ‘অস্কার ওয়াইল্ড’ ! আমাদের ঘরে কাঠের মেঝে, পুরানো দিনের কাঠের কাজ করা একটি কিং সাইজ খাট, সমস্ত আসবাবপত্র উনবিংশ শতাব্দীর ডিজাইনে তৈরি । বিছানা, গদী, লেপ-কম্বল, তোয়ালে সবই উচ্চ মানের । বাথটব ও অন্যান্য উঁচুদরের ফিটিংস সমেত বাথরুমটিও অতি চমৎকার । Albion Manor-এ অ্যান্টিক শিল্প ও চিত্রকলার ছড়াছড়ি – বিশ্বের নানা জায়গা থেকে সংগৃহীত ধাতু, সিরামিক আর পাথরের কারুকাজের হস্তশিল্প ।

ঘরে জিনিসপত্র রেখে একটু জিরিয়ে আমরা বেরিয়ে পড়ি ভিক্টোরিয়ার রাস্তায়, পৌঁছে যাই বিধানসভার সামনের মাঠে । সেখানে তখন ‘ভিক্টোরিয়া ডে’ উপলক্ষ্যে উৎসবের মেজাজ – নানান স্কুল, কলেজ থেকে আসা পড়ুয়াদের ব্যান্ডবাদ্যের আসর, ১০-১৫ জনের দলের বাদ্যসঙ্গীত পরিবেশন আর তাদের উৎসাহ যোগাতে অনেক স্থানীয় অধিবাসী ও ভ্রমণার্থীদের সমাগম । বিধানসভার ভিতরে বিনামূল্যে গাইডেড গ্রুপ ট্যুর-এর ব্যবস্থা আছে, দুপুর সাড়ে তিন’টের ট্যুর-এর টিকিট সংগ্রহ করে আমরা মধ্যাহ্নভোজনের উদ্দ্যেশে পা চালাই । বিধানসভার সামনে মাঠ পেরোলেই চওড়া রাস্তা, সমুদ্রের পাড় ঘেঁষে । আর সেখানেই ভিক্টোরিয়া হারবার – নানা সাইজের yacht, পালতোলা নৌকা ও সী-প্লেনের ভীড় । হারবারের ধারে প্রমেনাড যেন এক মেলা প্রাঙ্গণ – অনেক শিল্পী সাজিয়ে বসেছে তাদের আঁকা ছবি ও হস্তশিল্পের পশরা নিয়ে, কেউ দেখায় ম্যাজিকের খেলা, কেউবা বিরাট উঁচু একচাকার সাইকেল নিয়ে কসরত দেখায় ! হারবার সংলগ্ন বেশ কিছু রেস্তোরাঁ, সবাই দেখি সীফুড পরিবেশনে সিদ্ধহস্ত !      

সমুদ্রের ওপর জেটিতে এক রেস্তোরাঁয় ফ্রায়েড স্কুইড, clam chowder soup ও ফিশ অ্যান্ড চিপস দিয়ে সমাধা হয় আমাদের মধ্যাহ্নভোজন । আমাদের রেস্তোরাঁর সামনে সমুদ্রে একের পর এক ওঠানামা করে সী-প্লেন, যাত্রীদের নিয়ে উড়ে যায় কাছের দ্বীপে ও ভ্যাঙ্কুভারে; আধঘন্টার জন্য ভিক্টোরিয়ার আকাশে কয়েক চক্করের ‘জয় রাইড’-এও সওয়ার হ’ন কেউ কেউ !

সাড়ে তিন’টের সময় বিধানসভায় ঢুকে পড়ি আমরা – ইউনিভার্সিটি অফ ভিক্টোরিয়ার স্নাতক স্তরের এক ছাত্রী আমাদের ঘুরিয়ে দেখায় বিধানসভা ও অধিবেশন কক্ষ, যত্ন সহকারে বোঝায় ব্রিটিশ কলাম্বিয়ার ইতিহাস, নির্বাচন পদ্ধতি, বিভিন্ন স্মারক । আমরা ভারত থেকে এসেছি শুনে মেয়েটি বলে সে ভারতে আসতে খুবই আগ্রহী !

ক্যনাডায় গরমকালে সূর্য ডোবে ন’টার পর, প্রায় রাত সাড়ে ন’টা অবধি বাইরে বেশ আলো – আটটা নাগাদ আমরা নৈশাহারের সন্ধানে পৌঁছে যাই, Fisherman’s Wharfসেখানে জেটির দু’ধারে সুন্দর দোতলা সব আধুনিক বাড়ি, সবগুলি বাড়িই জলে ভাসমান । জেটির এক দিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে বেশ কিছু রেস্তোরাঁ আর অন্য দিকে সার সার Yacht ও মোটরচালিত নৌকা নোঙর করা । দেখি জেটির কাছে দু’টি সীল সাঁতরে বেড়ায়, ট্যুরিস্টদের প্রায় হাত থেকে মাছ খেয়ে যায় তারা – জেটিতে সবাই ভীড় করে তাদের এহেন কসরত দেখে !

পরদিন সকালে Albion Manorএর ডাইনিং হ’লে বারোটি আসন বিশিষ্ট এক বিরাট টেবিলে আমাদের প্রাতরাশের ব্যবস্থা । সেখানে অন্যান্য অতিথিদের সঙ্গে আমাদের পরিচয় হয় – অস্ট্রেলিয়া থেকে এসেছেন এক বয়স্ক দম্পতি, আমেরিকার Salt Lake City থেকে এসেছেন আরও দুই দম্পতি, দুই মহিলা বন্ধু এসেছেন আমাদের মত ভ্যাঙ্কুভার শহর থেকে । কমলালেবুর রস, দু-তিন রকমের ফল, ব্লু-বেরী প্যানকেক, সসেজ ও কফি দিয়ে ভরপেট প্রাতরাশ সেরে আমরা বেরিয়ে পড়ি ভিক্টোরিয়ার এক বিশেষ দ্রষ্টব্য, Craigdarroch Castle দেখতে ।

উনবিংশ শতাব্দীর মাঝামাঝি Robert Dunsmuir নামে এক স্কটিশ ভাগ্যান্বেষী কয়লা খনিতে কাজ নিয়ে ভ্যাঙ্কুভার দ্বীপে এসে পৌঁছান । পরবর্তী কালে ভিক্টোরিয়ার উত্তরে Nanaimo শহরের কাছে তিনি এক কয়লা খনির মালিক হ’ন ও কয়লার ব্যবসায়ে প্রচুর ধন-সম্পত্তি উপার্জন করেন । ১৮৮৭-১৮৯০ সালে Robert Dunsmuir নির্মাণ করেন Craigdarroch Castle, কিন্তু ১৮৮৯ সালে মৃত্যুর জন্য ঐ প্রাসাদে বাস করার সৌভাগ্য হয়নি তাঁর । Dunsmuir-এর বিধবা পত্নী, Joan Olive, তাঁদের তিন অবিবাহিতা কন্যা ও দুই অনাথ নাতি-নাতনী নিয়ে ঐ প্রাসাদে বাস করতে আসেন ১৮৯০ সালে, বসবাস করেন ১৯০৮ সালে তাঁর মৃত্যু পর্যন্ত ।  উনবিংশ শতাব্দীতে উত্তর আমেরিকার ধনীজন নির্মিত প্রাসাদগুলির ধনাঢ্য আড়ম্বরের অন্যতম Craigdarroch Castle । প্রায় দুই একর জমিতে ২৫,০০০ স্কোয়ার ফুট আয়তনে ৩৯ টি কামরা নিয়ে উদ্ধত ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে থাকা প্রাসাদটি বেশ সম্ভ্রমের উদ্রেক করে ! মাথাপিছু ১৪.২৫ ক্যানাডিয়ান ডলার দিয়ে টিকিট কেটে প্রাসাদে প্রবেশ করি আমরা । সুদূর স্পেন, Chicago, Hawaii-থেকে আমদানি করা আখরোট, মেপল, রেড সেডার, রোজঊড, চেরী, ওক ইত্যাদি কাঠ দিয়ে তৈরি প্রাসাদের বিভিন্ন অংশ ও আসবাবপত্র । প্রাসাদের জানালায় রঙিন কাঁচের (stained glass) কারুকাজ দেখার মত ! অভ্যাগত ও পরিবারের সদস্যদের বসার ঘর, ব্যাঙ্কোয়েট হ’ল, একান্ত ডাইনিং হ’ল, বিভিন্ন সদস্যের শয়নকক্ষ ও তাদের আড়ম্বরের বাহুল্য সবই ঊনবিংশ শতাব্দীর ভিক্টোরিয়ান জমানার – সব ঘরেই বহুমূল্য অ্যান্টিক ও চিত্রকলার নিদর্শন ! এহেন প্রাসাদে আমাদের ঘড়ির কাঁটাও যায় যেন থেমে, কেটে যায় দুঘণ্টারও বেশী সময় ।

প্রাসাদ থেকে বেরিয়ে বাস ধরে আমরা পৌঁছই ভিক্টোরিয়ার ডাউনটাউন – এক ইতালিয়ান রেস্তোরাঁয় মধ্যাহ্নভোজন সেরে আমরা গিয়েছি ভ্যাঙ্কুভার দ্বীপের দক্ষিণ প্রান্তে James Bay-তে, সমুদ্রতীর বেয়ে চলেছে রাস্তা । রাস্তা সংলগ্ন প্রমেনাড ধরে হেঁটে যাই আমরা, সমুদ্র সেখানে অপ্রশস্ত, খাঁড়ির অপরপ্রান্তে দেখতে পাই আমেরিকার ওয়াশিংটন প্রদেশে অলিম্পিক পর্বতমালা – তার চূড়োয় রূপোলি বরফের উজ্জ্বল মুকুট ! আমার ক্যামেরা ব্যস্ত হয়ে পড়ে অনুপম নিসর্গকে ধরে রাখতে ।

অবশেষে ভিক্টোরিয়ার মায়াজাল ছিঁড়ে বেরিয়ে আসি আমরা; ফিরতি পথে Swartz Bay থেকে ভ্যাঙ্কুভারের ফেরীতে উঠি, জাহাজে কাঁচের দেওয়াল ঘেরা ডাইনিং হলে বসে ডিনারের সাথে অবলোকন করি প্রকৃতির আর এক বর্ণময় রূপ  – স্বর্ণালী সন্ধ্যার শেষে সুয্যিমামার ঘুমের দেশে পাড়ি ।

[মাতৃমন্দির সংবাদ, নিউ দিল্লী, জুলাই ২০১৭ সংখ্যায় প্রকাশিত]